Sunday, April 13, 2014

নিশির পাগলামী অথবা একটি ভালবাসার গল্প। valobasar golpo

-বাবু আমি এখন একটু রাখি ? আমার এখন কথা বলতে ভাল লাগছে না ।
-না তা লাগবে কেন ? এখন আমিতো পুরনো হয়ে গেছি । এখন তো আর আমার সাথে কথা বলতে ভাল লাগবে না ।
আমি নিশির কথা শুনে কিছুক্ষন থ হয়ে গেলাম । এই মেয়েটার মাথা কি খারাপ নাকি ? কিসের ভিতর কি কথা বলছে ।
আমি বুঝি না এতো বড় একটা মেয়ের মাঝে মাঝে কি হয় ! আরে মাঝে মাঝে বলছি কেন এই মেয়ে তো
সব সময়ই এমন করে ! মাঝে মাঝে মনে হয় সব ছেড়ে ছুড়ে চলে যাই কিন্তু তখনই নিশির নিশ্পাপ চেহারাটা আমার চোখের সামনে ভেসে ওঠে । তখন কিছুতেই নিশির উপর রাগ করে থাকা যায় না । ওর সব পাগলামো সব ছেলেমানুষী সহ্য হয়ে যায় ।
একবার ঠিক এমনই হয়েছিল । আমাকে ওর পাগলামোর কারনে খুব লজ্জায় পড়তে হল । রিক্সায় করে ওর সাথে যাচ্ছিলাম । পথের মধ্যে আমার এক বান্ধবীর সাথে দেখা । ক্লাসমেইট । রিক্সা থামিয়ে ওর সাথে কথা বললাম কিছুক্ষন ।
কেন বললাম !
তার একই কথা !
নিশি কেমন পাগলের মত আচরন করতে লাগলো । বলল
-তুমি কেন কথা বললে ঐ মেয়ের সাথে ? আমাকে ইগনোর করে কেন কথা বললে ?
-আরে ওর সাথে কথা বললাম তো কি হয়েছে ? আর তোমাকে ইগনোর করলাম কোথায় ?
-তাহলে তুমি কেন কথা বললে ?
-আরে আশ্চর্য ! কথা বলেছিতো কি হয়েছে ?
-কি হয়েছে ? কি হয়েছে ?
নিশি এতো জোরে চিৎ‍কার করে উঠলো যে আসেপাশের মোটামুটি সবাই ই তাকিয়ে দেখলো আমরা কি করছি । আমার অস্বস্তির সীমা থাকলো না ।
কিন্তু নিশির সেদিকে কোন ভ্রুক্ষেপ নেই । ওর চিৎ‍কার করেই চলেছে । আমি ওকে কয়েক বার শান্ত করার আমি রিক্সা থেকে নেমে হাটা দিলাম ।
মনে মনে বললাম এই অসুস্থ মেয়ের পাশে আর একটুও নয় ।
এই মেয়ের সাথে আর কোন সম্পর্ক নয় । রাতে নিশি কয়েকবার ফোন দিলেও আমি ধরলাম না । মোবাইল বন্ধ করে শুয়ে থাকলাম ।
ওর উপর খুব রাগ লাগছিল । খুব বেশি রাগ ।
সম্পর্কের মধ্যে মান অভিমান থাকবেই । মানুষের উপর মানুষ রাগ করতেই পারে কিন্তু সেই রাগ করার তো একটা লজিক থাকা চাই । কিন্তু নিশি বেলায় এই লজিক ফলো করে না । কি সব লজিক বিহীন কারন নিয়ে চিৎ‍কার চেচামিচি শুরু করে । মেজাজটা ঠিক রাখা কষ্টকর হয়ে যায় ।
রাতে ফোন বন্ধ করে শুয়েছিলাম সকালবেলা নিশি এসে হাজির । চোখ মুখের অবস্থা দেখে মনে হল সারারাত একটুও ঘুমাই নি । কান্নাকাটিও করেছে নিশ্চই ।
আমাকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে হু হু করে কেঁদে দিল । আসলে যত রাগই হোক না কেন এমন করে কেউ যদি কান্না কাটি করে নিজেকে কি ধরে রাখা যায় । কাঁদতে কাঁদতেই আমাকে জড়িয়ে ধরলো । কান্নার বেগ যেন আরো বাড়ল ।
এই মেয়ের উপর কিভাবে রাগ করে থাকি !
প্রতিবারই ও অহেতুক ভাবে এমনটা করবে আমার মেজাজ খারাপ হবে আবার ওকে ক্ষমাও করে দিবো ।

আমি নিশিকে বলল
-আচ্ছা তুমি এমন কথা কেন বলছো ?
-বলব না ? তাহলে তুমি কেন ফোন রেখে দিতে চাইছো ? আমাকে আর ভাল লাগে না তাই তো আমার সাথে কথা বলতে ইচ্ছা করে না । কালকেও তুমি এমনটা করেছ ।
-আরে বাবা আমি বললাম না যে আমি আজ সারা দিন সেমিনারে আছি । কাল ছিলাম । সকাল থেকে রাত পর্যন্ত । এখন তুমি বল সারা দিন খাটা খাটনি করে কি রাত জেগে কথা বলতে ইচ্ছা করে !!
-আমি জানি না । আমি কিছু জানি না । আমার সাথে কথা বলে হবে । আজ সারাদিন তুমি একটুও কথাও বল নি ।
-আরে আমি তো বিজি ছিলাম । কিভাবে বলবো ?
-আমি জানি না । আমি কিছু শুনতে চাই না । কিছু শুনতে চাই না ।
আমি ফোনের লাইন কেটে দিলাম । এই মেয়ের সাথে কথা বলে লাভ নাই । একবার যা বলতে তা থেকে কিছুতেই নামানো যাবে না । আর আমার পক্ষে এখন কথা বলা সম্ভব না কিছুতেই ।
আমি ফোন বন্ধ করে ঘুম দিলাম । ফোন খোলা থাকলে নিশি ফোন করতেই থাকবে !

ঘুমিয়েই পড়েছিলাম । ঘুম ভাঙ্গলো খুব সকালে । সকাল না বলে বলে ভোর বলাই ভাল । কারন এখনও খুব একটা আলো ফোটে নি । আমি আড়মোড়া ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে মোবাইল হাতে নিলাম । এখনও বন্ধ ।
আরে রাতে না বন্ধ করে ঘুমিয়ে পরেছিলাম । নিশি কি ঘুমিয়েছে ?
মেয়েটা এমন পাগলামো করে । নিশ্চই ঘুমাইনি ।
আমি ফোন অন করটেই মেসেজের বৃষ্টি শুরু হল যেন ।
নিশর মেসেজ ।
সব গুলোতে কেবল একটা লাইন লেখা
আমি তোমাকে অনেক মিস করছি !!
আমি তোমাকে অনেক মিস করছি !!
আমি তোমাকে অনেক মিস করছি !!
এই মেয়েটা আসলেই পাগল । একদম পাগল ।
আসলে কাল রাতে এতো ক্লান্ত ছিলাম কিছুতেই কথা বলার অবস্থায় ছিলাম । মেয়েটা নিশ্চই মন খারাপ করেছে । কান্না কাটিয়ও নিশ্চই করেছে ।
কি করবো ?
এখন ফোন দিবো !!
আমি জানি একটু সরি বললেই ও মন ভাল হয়ে যাবে কিন্তু আরো বেশি কিছু কি করা যায় না?
যায় !!
আমি চট করে তৈরি হয়ে নিলাম । এতো সকালে কেউ বের হয় নি । সকালটা একদম নির্জন । কোথা থেকে যেন পাখির ডাক ভেসে আসছে !!
নিশি কি ঘুমিয়েছে ?
কে জানে ?

দুবার ফোন বাজতেই নিশি ফোন রিসিভ করল । কিন্তু কোন কথা বলল না । এর মানে হল ও রাগ করেছে । আমি বললাম
-রাগ করেছ?
-হুম !
-খুব বেশি ?
-হুম !
-কথা বলবা না?
-হুম !
আমি হেসে ফেললাম ।
-কথা বলবা ?
নিশি কোন কথা বলল না । আমি আবার বললাম
-তুমি মাঝে মাঝে এমন ছেলেমানুষি কর । আামর দিকটাও তোমার তো দেখা উচিৎ !
-আর তুমি আমার দিকটা দেখবা না ?
-আরে বাবা !! থাক বাদ দাও । দেখ বাইরে কি সুন্দর সকাল ।
-দেখবো না ।
-আরে ! আমি না দোষ করেছি । সকালতো আর কোন দোষ করেনি ।
নিশি কোন কথা বলল না ।
-আচ্ছা তোমার মন ভাল করে দিব? দিবো ?
-কিভাবে ?
-আচ্ছা শুনো , তুমি এখন তোমার জানলা দিয়ে যদি বাইরে তাকাও তাহলে তোমার মন ভাল হয়ে যাবে । আমি গেরান্টি দিচ্ছি ।
-আচ্ছা ?
-তাকিয়ে দেখ !
ঠিক তখনই নিশিকে জানলায় দেখা গেল । আমি হাত নাড়লাম ।
-মন ভাল হয়েছে ?
নিশি কোন কথা না বলে জানলা থেকে সরে গেল দ্রুত ।
কি হল ?
রাগ কি বেশি করেছে ?
এমন তো হবার কথা না ?
ঠিক তার কিছু সময় পরই নিশিকে হলের গেটে দেখা গেল ।
গেট থেকে বের হয়ে একদম এদিকেই এগিয়ে আসছে । এগিয়ে আসছে বলতে এদিকে দৌড়ে আসছে । আসতে আসতে একদম কাছে যখন চলে এল আমার মনে হল ও থামবে না । সিনেমায় যেমন নায়িকারা দৌড়ে এসে নায়কের বুকে ঝাপিয়ে পড়ে নিশিরও তেমন কিছু করার প্লান ।
ঠিক তাই ই করলো !!
ভাগ্য ভাল যে সকাল বেলা । মানুষ জন কেউ নাই ।

No comments:

Post a Comment