Friday, April 25, 2014

বুক জ্বালা-পোড়া করলে কী করবেন?


ডা. নাজমুল কবীর কোরেশী :: মাঝেমধ্যে বুকের মাঝখানে জ্বালা-পোড়াকে চিকিৎসাবিজ্ঞানে হার্ট বার্ন বলে। যদিও এটি হূৎপিণ্ডের সমস্যা নয়। সমীক্ষায় দেখা যায়, প্রতিদিন ২৫ মিলিয়ন লোক এবং ৪০ শতাংশ পূর্ণবয়স্ক নারী-পুরুষ জীবনের যেকোনো সময়ে এ উপসর্গে ভুগে থাকেন। গর্ভকালীন ৪০ থেকে ৮০ শতাংশ গর্ভবতী মায়ের এ সমস্যা প্রকট হয়ে দেখা দেয়।
ঝুঁকি
যাঁরা এ উপসর্গে ভোগেন, তাঁদের মধ্যে ৯৪ শতাংশ ব্যক্তি খাবারের তারতম্যের কারণে এবং ৫০ শতাংশ ব্যক্তি মানসিক চাপের কারণে এ সমস্যায় পড়েন।
 অ্যালকোহল, কালো গোলমরিচ, চকলেট, কফি, কোমল পানীয়, সিরকা, তৈলাক্ত খাবার, ভাজাপোড়া, আচার, টমেটো সস, কমলার রস, পেঁয়াজ, পিপারমিন্ট ইত্যাদি এই উপসর্গ বাড়ায়।
 খাবার গ্রহণের পরপরই শুয়ে পড়া বা ব্যায়াম করা ভালো নয়।
 পাকস্থলীর ওপর চাপ। যেমন একসঙ্গে বেশি খাদ্য গ্রহণ, স্থূলতা, গর্ভাবস্থা, শক্ত বেল্টের প্যান্ট পরা।
 দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ ও ধূমপান।
প্রতিরোধ
বর্তমানে বুক জ্বালা-পোড়ায় নানা ধরনের ওষুধ ব্যবহূত হয়, যা চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে পারেন। তবে কিছু নিয়ম মেনে চললে সহজেই এটি এড়িয়ে চলা যায়।
 যেসব খাবার ও পানীয় খেলে বুক জ্বলে তা চিহ্নিত করুন এবং এড়িয়ে চলুন।
 ধূমপান পরিহার করুন।
 একসঙ্গে বেশি না খেয়ে ঘন ঘন অল্প পরিমাণে খান।
 খাওয়ার পরপরই শুয়ে পড়বেন না অথবা ব্যায়াম করবেন না। দু-তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করুন।
 অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে ফেলুন।
সূত্র : প্রথম আলো

হাঁড় ক্ষয় রোগে কী করবেন?

ডা. সুলতানা মারুফা :: আমাদের শরীরের ৯৯ শতাংশ ক্যালসিয়াম জমা থাকে হাড়ে। হাড়ের ঘনত্ব ও জোর অনেকটাই নির্ভর করে এই ক্যালসিয়ামের পরিমাণ ও ঘনত্বের ওপর। হাড়ের গুরুত্বপূর্ণ এই উপাদান ক্ষয় বা কমে যাওয়ার কারণে হাড় ভঙ্গুর ও হালকা হয়ে যায়। এমন সমস্যাকে বলে অস্টিওপোরোসিস।
দেহে হাড়ের বৃদ্ধি ও গঠন জন্মের পর থেকে একটানা ২৫-৩০ বছর বয়স পর্যন্ত চলে। নারীদের মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর হাড়ের ঘনত্ব মারাত্মকভাবে কমে যায়। নারী-পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই বার্ধক্য একটি বড় ঝুঁকি। এ ছাড়া পারিবারিক ও জাতিগত ঝুঁকি, তামাক ও ক্যাফেইন, স্টেরয়েড-জাতীয় ওষুধের দীর্ঘদিনের ব্যবহার, থাইরয়েড ও অন্য কিছু হরমোনজনিত সমস্যা, বিভিন্ন ধরনের বাত, অত্যধিক মদ্যপান, অলস ও প্রায় শয্যাশায়ী জীবনযাপন, এমনকি বিষণ্নতা এ রোগের ঝুঁকি অনেকাংশে বাড়িয়ে দিতে পারে। ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।
অস্টিওপোরোসিস ফাউন্ডেশন এই রোগ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যকর জীবনধারা অনুসরণ করার পরামর্শ দিচ্ছে। এগুলো হলো:
-শৈশব থেকে সুষম খাদ্য গ্রহণ, যাতে থাকবে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম, অন্যান্য ভিটামিন ও যথেষ্ট আমিষ।
-নিয়মিত ব্যায়াম বা কায়িক পরিশ্রম।
-ধূমপান ও মদ্যপান এড়িয়ে চলা।
-মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর প্রয়োজনে ক্যালসিয়াম বড়ি সেবন।
-বয়স্কদের ওজনহীন ব্যায়ামের অভ্যাস।
-প্রয়োজনে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চিকিৎসকের পরামর্শে চিকিৎসা গ্রহণ।
সূত্র : প্রথম আলো

Monday, April 21, 2014

হেলথ টিপস: ছেলে-মেয়ে উভয়ের জন্য: তারুণ্য ধরে রাখার রহস্য ;

তারুণ্য ধরে রাখার রহস্য কী, বিজ্ঞপনের ক্রিম মেখে না অন্য কিছু?
আমাদের প্রতিদিনের জীবন ধারণের পদ্ধতি দেহে এবং চেহরায় বয়সের প্রভাব ফেলে। আমাদের জীবন যাপনে নিয়ন্ত্রণ এবং কিছু বিষয় মেনে চললে আমাদের বহুদিন তারুণ্য ধরে র
াখা অসম্ভব কিছুই নয়। চেষ্টা করেই দেখুন:
• খাবারের তালিকায় টমেটো রাখুন। নিয়মিত টমেটো খাওয়ার অভ্যাস বর্তমান বয়স থেকে কম বয়সী দেখায়
• সঙ্গীর সঙ্গে শারীরিক এবং মানসিক সুসম্পর্ক থাকলে বয়স অনেক কম দেখায়
• প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যায়াম করুন
• চকলেট পছন্দ করেন? প্রতিদিন চকলেট খেলে বয়স কম দেখাবে
• মন খুলে হাসতে পারলে আয়ু বাড়ে
• প্রতিদিন ফল খাওয়ার অভ্যাস করুন
• প্রচুর পানি পান করতে হবে
• সঠিক খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলুন
• ভিটামিন জাতীয় খাবার প্রচুর পরিমাণে খেলে বয়স কম দেথায়
• সুন্দর হাসির জন্য প্রয়োজন সুস্থ দাঁত। দাঁতের সঠিক যত্ন নিলে বয়স কম দেখাবে
• সকালে নিয়মিত সকালের নাস্তা খান
• রাতে খুব ভালো ঘুম আয়ু বাড়িয়ে দিতে পারে
• নিয়মিত যে কোনো ধরনের বাদাম আমাদের ত্বক সজীব রাখে
• দুশ্চিন্তা এবং হতাশা আমাদের জীবনী শক্তি কমিয়ে দেয়। আর বয়সের তুলনায় আমাদের বুড়ো দেখায়।

Sunday, April 13, 2014

সুন্দর হবার কিছু টিপস:

 ছেলে এবং মেয়ে সবার জন্য     

সুন্দর হবার কিছু টিপস:

                       
আজ আপনাদের জন্য হাজির করলাম কিছু সৌন্দর্য্য টিপস। শুধু মেয়েরাই নয় ছেলেরাও এই টিপস গুলো অনুসরণ করে সুফল পেতে পারেন। কাজেই পড়ুন > কাজে লাগান > জানিয়ে দিন পৃথিবীকে আপনিও পারে সব জয় করতে।


টিপস:- ১

যতটা পারে রোদ থেকে বাঁচুন। ছাতা এবং সানগ্লাস ব্যবহার করুন।যখনই বাহিরে যাবেন

হয়তো ভালবাসার গল্প

ঘড়িতে ঠিক রাত ৮.৩০ । অস্থির নন্দিনী অপেক্ষা করছে ফেইস বুক চ্যাট-এ । এখনই তো আসার কথা তার । কেন আসেনা! কি যে হয়েছে আজকাল সারাদিন শুধু অপেক্ষায় থাকে কখন রাত হবে,কখন কথা হবে …।
আজ থেকে কয়েক মাস আগে কিছুটা জিদ এ,কিছুটা বিরক্তি তে নতুন একটা account খুলেছে নন্দিনী ।পুরনো টা deactivated.একজন মানুষ ওর জীবনটা কে অগোছালো করে দিয়েছে । যাকে ছাড়া একসময় কিছুই ভাবতে পারতো না নন্দিনী ,তাকে ভোলার জন্য , তার কাছ থেকে দূরে যাবার জন্য

স্কুল-কলেজের মেয়েদের প্রতি কিছু তেতো কথা ।

( এই পোষ্টের বিষয়বস্তুতে তথাকথিত শিক্ষকনামধারী লম্পট জানোয়াররুপী কিছু মানুষ , এদের দ্বারা বিশেষকরে স্কুল কলেজের ছাত্রীদের যৌন হয়রানী / নির্যাতন , এই বিষয়ে সেইসব ছাত্রীদের অনিশ্চিত – অপরিপক্ক সিদ্ধান্ত ও সেসব ইস্যুর প্রতিকার এবং প্রতিরোধে তাদের সত্যিকার প্রতিক্রিয়া কি হওয়া উচিৎ তার উপরে আলোকপাত করার চেষ্টা করেছি । শ্রদ্ধেয় সকল মহামতি শিক্ষকদের প্রতি নো অফেন্স প্লীজ । অন্যান্য সকল প্রকার রেইপ কেস / রেপিস্ট / শাস্তি / কারণ / প্রতিকার কিংবা প্রতিরোধ এই পোষ্টের আলোচ্য বিষয় নয় । সেসব বিষয়ে আমার রেইপ বিরোধী অন্যান্য পোষ্টে আরও আলোচনা করেছি । )

কর্পোরেট ভালোবাসা

” আংকেল উঠেন, নবাবের মত ঘুমানোর বয়স আর আপনার না। ফ্রেশ হয়ে ব্রেকফাস্ট করে নেন। ভাগ না পেলে আমার কোন দোষ নাই’
ঘুম থেকে উঠতে ইদানিং খুব আলসে লাগে। ভোরে নামাজ পরে ঘুমাইছিলাম। অন্যেরা হাঁটতে বের হলেও আমার কেন জানি ঘুমটা একটু বেশি ধরে।
মাঝে মাঝে মনে হয় এই ঘুমটা যদি আর না ভাঙতো!! খুব ভালো হতো। আমার টুকটুকে বউ যেখানে গেছে আমিও সেখানে যেতাম। দুজন মিলে আবার সংসার করতাম।

কর্পোরেট ভালোবাসা

” আংকেল উঠেন, নবাবের মত ঘুমানোর বয়স আর আপনার না। ফ্রেশ হয়ে ব্রেকফাস্ট করে নেন। ভাগ না পেলে আমার কোন দোষ নাই’
ঘুম থেকে উঠতে ইদানিং খুব আলসে লাগে। ভোরে নামাজ পরে ঘুমাইছিলাম। অন্যেরা হাঁটতে বের হলেও আমার কেন জানি ঘুমটা একটু বেশি ধরে।
মাঝে মাঝে মনে হয় এই ঘুমটা যদি আর না ভাঙতো!! খুব ভালো হতো। আমার টুকটুকে বউ যেখানে গেছে আমিও সেখানে যেতাম। দুজন মিলে আবার সংসার করতাম।

প্রেমের সপ্তবর্ণ

প্রেম-১
কাজিন হওয়াতে জড়তাটা ছিল না। একসাথে খেলতাম, ঘুরতাম এমনকি বাঁশঝাড়ে লুকিয়ে দুজন মিলে সিগারেট পর্যন্ত খেয়েছি। আমার খালাত- বোন মিলির কথা বলছি। দুজন একি স্কুলের একি ক্লাসে পরতাম। আমার খালা আমাদের বাসার দোতলায় থাকতেন। তখন বয়ঃসন্ধি সবে উঁকি দিয়েছে। লুকিয়ে কিছু প্রেমের বই পড়েছিলাম। তাতে প্রেম করার খুব সাধ জেগেছিল। মিলিকে নিজের প্রেমিকা ভাবতে খুব ভাল লাগতো। বন্ধুরা বলতো প্রথম প্রেমের নাকি তুলনা নেই। প্রথম প্রথম ব্যাপারটাকে এতো গুরুত্ব

হায় ভালবাসা !!



বর্ষাকাল, অনেক বৃষ্টি হছে, নীলক্ষেত থেকে পান্থপথ যাবো। বৃষ্টিতে প্রায় অনেকটা ভিজে গিয়েছি, মেজাজ তখন চরম বিগরে আছে; কি করব একটিও রিকশা পাচ্ছিনা।
“এই মামা; পান্থপথ যাবেন?”
অবশেষে একটি পেলাম তাও ১২০টাকা ছাড়া যেতে রাজি নয়। যেতে তো হবে, কারন ওপাশে আমার অশিন আমার জন্য অপেক্ষা করছে। তাকে আমি আজ আমার হৃদয়ের কথা বলবো, তাই অনেকটা নার্ভাস ফিল করছিলাম।

শ্বেতশুভ্র ভালোবাসা।

ইদানিং কি হয়েছে জানো, সকালে উঠেই তোমার দেয়া সেই জাপানী কাঠের আলমারিতে রাখা পুতুলটার দিকে চোখ যায়। দেখলেই মনে হয় আমাকে ভেঙ্গাচ্ছে…আর তোমাকে মনে করিয়ে দেয়। ভুল বললাম, তোমাকে মনে করার সুযোগ কই… তুমিতো আছ আমার মনেই। তোমার এই জাপানী পুতুলের নীরব উপহাসের হাত থেকে আমায় রক্ষা করে মুনা। ও আচ্ছা তুমিতো আবার মুনাকে চেন না। মুনা আমার লক্ষ্মী বউ। ভ্রু কুচকিও না…ও তোমার সবকিছু জেনেই আমাকে বিয়ে করেছে।

“একটি অসমাপ্ত ভালবাসার গল্প”

স্বপ্ন ছিল কারো প্রেম হয়ে তার ভেতর জন্ম নেব। খুব জলদি তা পূরণ হয়।
আমি তখন ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী। নতুন ক্লাস নতুন নতুন ছেলে মেয়ে। ভাব টাই আলাদা। বান্ধবীরা মিলে গবেষণা করতাম ছেলেদের মধ্যে কে বেশী হ্যান্ডসাম ।
রক্ষণশীল মুসলিম পরিবারের মেয়ে আমি। আমার কোন ছেলে বন্ধু নেই । আমার পরিবার এটা গ্রহণ করে না।

“একটি অসমাপ্ত ভালবাসার গল্প”

স্বপ্ন ছিল কারো প্রেম হয়ে তার ভেতর জন্ম নেব। খুব জলদি তা পূরণ হয়।
আমি তখন ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী। নতুন ক্লাস নতুন নতুন ছেলে মেয়ে। ভাব টাই আলাদা। বান্ধবীরা মিলে গবেষণা করতাম ছেলেদের মধ্যে কে বেশী হ্যান্ডসাম ।
রক্ষণশীল মুসলিম পরিবারের মেয়ে আমি। আমার কোন ছেলে বন্ধু নেই । আমার পরিবার এটা গ্রহণ করে না।

এক মুঠো সুখ: একটি ভালবাসার গল্প

তাকে আমি দেখেছি বহুবার কিন্তু সেবার মেজ মামার বিয়েতে সন্ধ্যার আবছা অন্ধকাওে মোমের আলোয় তাকে দেখলাম নতুন রুপে। যেন আমি এই মেয়েটিকে এর আগে কখনও দেখেনি! আমার হৃদস্পন্দন বেড়ে গিয়েছিল হাজারগুণ, আমি অপলক শুধু তাকিয়েই ছিলাম তার দিকে। বিয়ে বাড়ীর কোলাহলে আমি এক শুভ্র নীরবতা অনুভব করলাম নিজের ভিতরে। সেই প্রথম কোন মেয়েকে ভাললাগার আবেশ আমার বুকের মাঝে। সময়টা ২০০৩ সালের ডিসেম্বর মাস, আমি এইচএসসি পরীক্ষা দিব আর সে মেয়েটি সবেম াত্র ক্লাস টেন এ পড়ে। দূর সম্পর্কের খালাতো বোন হওয়াতে ছোট বেলা থেকে বছরান্তে এক দুই

'একটা হঠাৎ পাওয়া বিকেলবেলা''

এয়ারপোর্টের এক্সিট করিডোর থেকে বের হয়ে মনের ভেতর একটা অনুরণন অনুভব করতে পারে ফারহান। প্রায় ৬ বছর পর নিজ জন্মভুমিতে পা রেখে পরম এক আনন্দের অনুভূতি খেলে গেলো সারা শরীরে! বুক ভরে নিঃশ্বাস নিলো। জতই কালো ধোঁয়া থাক, ধুলো বালির এই শহরের যেন আলাদা মাদকতা আছে ফারহানের কাছে! নিয়নের আলো, পিচ গলা রাস্তা, সোনালি পলি পেপার আর নিখুত হাতের চিত্র দিয়ে আকা রিকশ
া, গোলাপ হাতে কিশোরীর ছুটে চলা সবই খুব ভালো লাগে। মনে পরে যায় সেই সব সৃতি , ভালো লাগা।

ক্ষমা করে দিও। valobasar golpo

“আকাশ তোমার সময় হলে একটু ভেব
আমার কিছু প্রশ্নের জবাব দিয়ে যেও...।”

অর্থহীনের এই জনপ্রিয় গানটি শুনতে শুনতে যাচ্ছি।। মাগুরা থেকে খুলনা । বাস এ ঊঠার পর থেকেই এই গানটি শুধু শুনতে ইচ্ছে করছে । অনেক স্মৃতি বিজড়িত মাগুরা শহর কে ছেড়ে যেতে হচ্ছে। যেতে ইচ্ছে করছেনা কিন্তু দুইদিন পর থেকে খুলনা ইউনিভার্সিটি এর ক্লাস শুরু হবে। আস্তে আস্তে মেঠ পথ ধরে এগিয়ে যাচ্ছে বাসটি। চলে যাবার

নিশির পাগলামী অথবা একটি ভালবাসার গল্প। valobasar golpo

-বাবু আমি এখন একটু রাখি ? আমার এখন কথা বলতে ভাল লাগছে না ।
-না তা লাগবে কেন ? এখন আমিতো পুরনো হয়ে গেছি । এখন তো আর আমার সাথে কথা বলতে ভাল লাগবে না ।
আমি নিশির কথা শুনে কিছুক্ষন থ হয়ে গেলাম । এই মেয়েটার মাথা কি খারাপ নাকি ? কিসের ভিতর কি কথা বলছে ।
আমি বুঝি না এতো বড় একটা মেয়ের মাঝে মাঝে কি হয় ! আরে মাঝে মাঝে বলছি কেন এই মেয়ে তো

একটি অন্যরকম ভালবাসার গল্প। valobasar golpo

গতকাল আমাদের নতুন বাসার কাজ শেষ হল। বাসায় মাল-পত্র ওঠানো হচ্ছে। আগে থাকতাম টিনশেডের ১তলা বাসায়। সেটি ভেঙ্গে ২তলা দালান করা হয়েছে। উপর তলায় আমরা থাকব আর নিচ তলা ভাড়া দেওয়া হবে।
১ সপ্তাহ পর…………….
স্কুল থেকে বাসায় যাওয়ার সময় দেখি বাসার সামনে রাস্তায় ১টি অচেনা মেয়ে দাড়িয়ে আছে। এই মেয়েকে আগে এই মহল্লায় দেখি নাই। হইতবা নতুন এসেছে। দেখতে মোটামুটি সুন্দর। আমি ছোটকাল থেকেই

ভালবাসার গল্প। valobasar golpo

এই কি করিস ?
-চুপ থাক !
-আচ্ছা ! গার্লফ্রেন্ড পেয়ে ফ্রেন্ড কে ভুলে গেছিস ?
-ফুট ! এখন বিজি !
-এখন ফুট ! থাক তোর গার্ল ফ্রেন্ড কে নিয়ে ! আমি গেলাম !
লিয়া অফ লাইনে চলে যায় ! অপু মেসেঞ্জারের উইনডো থেকে চোখ ফেসবুকের ম্যাসেজ উইন্ডোর দিকে

একটি ছেলে যার ছিল অনেক স্বপ্ন। valobasar golpo

একটি ছেলে যার ছিল অনেক স্বপ্ন। অনেকের সাথে বন্ধুত্ব করবে সে। এই কারনে তার ফেসবুক এ আইডি খোলা। তার নাম ছিল রাফা। সে স্কুল-এ খুব চুপচাপ থাকতো। স্কুলে ছিল তার অনেক বন্ধু। কিন্তু সবাই ছিল ছেলে। কোন মেয়ের সাথে তার বন্ধুত্ব হয়নি। ফেসবুক আইডি খুলেছে সে ২০০৯ সালে। তখন সে প্রতিদিন এ সাইবার ক্যাফ-এ গিয়ে ফেসবুক ব্যভার করতো। সে কখনো ভাবে নি যে তার আজ এই পরিস্থিতির সম্মুখিন হতে হবে। তখন তার ফেসবুক আইডি তে ও কোন মেয়ে বন্ধু ছিল না। ঈদের ছুটিতে বাড়ি যায়

একটি হৃদয়স্পর্শী ভালোবাসার গল্প । valobasar golpo


একটি ছেলে তার প্রেমিকার "আমি তোমাকে ভালবাসি, তোমাকে মিস করি" এই টাইপ মেসেজ পেতে পেতে বিরক্ত হয়ে যেত !

এক রাতে প্রেমিকার কাছ হালকা কথা কাটাকাটির পর সে মোবাইল সাইলেন্ট করে দিলো, অনেকগুলো ফোন আসলো, একটি মেসেজ আসলো, কিন্তু সে সেটি না পড়ে ঘুমিয়ে গেল।
...

অসাধারণ একটি ভালবাসার গল্প । Heart touchin love story

রোজ নামে একটি মেয়ে ছিল যে গোলাপ ফুল খুব পছন্দ করত।।

তার স্বামী তাকে প্রতিটি ভ্যালেন্টাইন্স ডে তে গোলাপের তোড়া পাঠাতো আর সাথে থাকতো একটি করে কার্ড,যেখানে লেখা থাকতো সে তাকে কতোটা ভালবাসে।
 

 কিন্তু হঠাত্‍ একদিন রোজের স্বামী মারা যায় ।কিন্তু রোজের স্বামী মারা যাওয়ার এক বছর পরের ভ্যালেন্টাইন্স ডে তেও রোজ একি ভাবে কার্ড সহ গোলাপের তোড়া পেল, কার্ডে লেখা ছিল“আমি গত বছরের এই দিনে তোমাকে যতটুকু ভালবাসতাম, এখন তার থেকে আরও

Saturday, April 12, 2014

একটি ভালবাসার গল্প। valobasar golpo

একটি মেয়ে একটি ছেলেকে পাগলের মত ভালবাসে... ভালোই চলছিল তাদের দিন কাল...।
১ বছর পর মেয়েটা খেয়াল করল ছেলেটা তাকে আর আগের মত ভালবাসে না...
তাকে আড় করে চলে... একটা সময় ছেলেটা মেয়েটার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দিলো।
মেয়েটা জানতে পারলো ছেলেটার নতুন গার্লফ্রেন্ড হয়েছে....

মেয়েটা এই বিষয় নিয়ে ছেলেটিকে প্রশ্ন করতেই সে বলে অতীত ভুলে যাও...।
মেয়েটা বেইমান বলে কাঁদতে কাঁদতে ফিরে এলো ...।
সে কিছুতেই ছেলেটিকে ক্ষমা করতে পারলো না....

এটা আমার প্রথম পোস্ট

এটা আমার প্রথম পোস্ট..........................................................